দেশে করোনাভাইরাসে আরও ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে; এ নিয়ে দেশে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৮০১ জনে।

আরও একদিনে    ২ হাজার ৮৫৬ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা  পড়ায় দেশে   শনাক্ত রোগীর  সংখ্যা বেড়ে ২ লাখ  ১৬ হাজার  ১১০ জন  হয়েছে।

আইইডিসিআরের অনুমিত  হিসাবে বাসা ও  হাসপাতালে  চিকিৎসাধীন  আরও ২ হাজার ৬  জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন  গত ২৪ ঘণ্টায়।  তাতে সুস্থ  রোগীর  সংখ্যা দাঁড়াল মোট ১ লাখ  ১৯ হাজার ২০৮ জনে।

স্বাস্থ্য  অধিদপ্তরের নিয়মিত  বুলেটিনে যুক্ত  হয়ে অতিরিক্ত  মহাপরিচালক অধ্যাপক  নাসিমা সুলতানা বৃহস্পতিবার দেশে  করোনাভাইরাস  পরিস্থিতির এই সবশেষ তথ্য  তুলে ধরেন।

বাংলাদেশে  করোনাভাইরাসের  প্রথম  সংক্রমণ ধরা পড়েছিল ৮ মার্চ  তা দুই লাখ  পেরিয়ে যায় ১৮ জুলাই।

এর মধ্যে ২ জুলাই ৪ হাজার ১৯ জন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়  যা এক দিনের সর্বোচ্চ।

আর ১৮ মার্চ  বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে  প্রথম মৃত্যুর খবর  নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য  অধিদপ্তর।

১৭ জুলাই তা  আড়াই হাজার  ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে ৩০ জুন এক দিনে  রেকর্ড ৬৪ জনের মৃত্যুর খবর জানানো হয়

নাসিমা  সুলতানা বলেন,,  গত এক দিনে যারা  মারা গেছেন  তাদের মধ্যে ৪১  জন পুরুষ এবং ৯ জন নারী।।

তাদের ২০ জন  ঢাকা বিভাগের  ৫ জন চট্টগ্রাম বিভাগের ৬ জন রাজশাহী বিভাগের, ৭ জন খুলনা বিভাগের ৪ জন বরিশাল বিভাগের, ১ জন সিলেট বিভাগের এবং ৭ জন রংপুর বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।

এই ৫০ জনের মধ্যে  চার জনের বয়স ছিল ৮০ বছরের বেশি।

এছাড়া ৮ জনের বয়স ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে

১৬ জনের বয়স ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে, ১২ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০  বছরের মধ্যে৭ জনের বয়স ৪১  থেকে ৫০  বছরের মধ্যে এবং ৩ জনের বয়স  ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ছিল।।

নাসিমা সুলতানা জানান  এ পর্যন্ত যে ২  হাজার ৮০১ জনের মৃত্যু হয়েছে  তাদের মধ্যে এক হাজার ২৬২ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি।

 

এছাড়া ৮২২  জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৩৯৭  জনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ১৯০  জনের বয়স  ৩১ থেকে  ৪০ বছরের মধ্যে, ৮২ জনের বয়স ২১ থেকে  ৩০ বছরের মধ্যে ৩০  জনের বয়স  ১১ থেকে  ২০ বছরের মধ্যে  এবং ১৮ জনের বয়স ছিল  ১০ বছরের নিচে।

তাদের মধ্যে  এক হাজার ৩৬১ জন ঢাকা  বিভাগের ৭০১ জন চট্টগ্রাম  বিভাগের ১৫৮ জন রাজশাহী  বিভাগের  ১৮৮ জন খুলনা বিভাগের, ১০৬ জন বরিশাল বিভাগের, ১২৯  জন সিলেট বিভাগের ১০০ জন রংপর  বিভাগের এবং ৫৮ জন ময়মনসিংহ বিভাগের।

 

গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে ৭৭টি ল্যাবে ১২ হাজার ৩৯৮ টি নমুনা  পরীক্ষা হয়েছে।  এ পর্যন্ত মোট নমুনা  পরীক্ষা হয়েছে ১০ লাখ ৭৯ হাজার ৭টি।

২৪  ঘণ্টায় নমুনা  পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৩  দশমিক  ০৪ শতাংশ। শনাক্ত  বিবেচনায়  সুস্থতার হার ৫৫ দশমিক ১৬ শতাংশ এবং  মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩০ শতাংশ।

নাসিমা  সুলতানা জানান,  করোনাভাইরাসের সেবা নিয়ে কোনো  অভিযোগ   থাকলে তা স্বাস্থ্য  অধিদপ্তরের ওয়েব সাইট www.dghs.gov.bd  এর CORONA কর্ণারে করোনা বিষয়ক অভিযোগ প্রেরণ লিংকে অথবা  http://app.dghs.gov.bd/covid19-complaint লিংক ব্যবহার করে পাঠানো যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *