Breaking News

গুগলে চাকরি পেলেন ঢাবি শিক্ষার্থী সাফায়েত

গুগলের তাইওয়ান অফিসে ‘গুগল পিক্সেল টিম’ সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সাফায়েত উল্যাহ। তিনি কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল (সিএসই) বিভাগের ২০১৪-১৫ সেশনের (২১ ব্যাচ) শিক্ষার্থী।
সাফায়েতের বাড়ি ফেনীর ছাগলনাইয়ার নিজপানুয়া গ্রামে। ছাগলনাইয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক ও ফেনী সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করে চান্স পান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের পড়াশোনা শেষ করে বর্তমানে ইনোসিস সল্যুশনস নামে ঢাকার একটি সফটওয়্যার কোম্পানিতে সিনিয়র সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে চাকরি করছেন।

ডেইলি বাংলাদেশকে সাফায়েত উল্যাহ বলেন, গত ৩ সেপ্টেম্বর গুগল কর্তৃপক্ষ কনফার্ম করেছে। তাইওয়ান অফিসে গুগল পিক্সেল টিমে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজের সুযোগ পেয়েছি।
সাফায়েত আরো বলেন, জীবনের স্বপ্নের একটি প্রতিষ্ঠান ছিলো গুগল। কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ থেকে পড়াশোনা করা প্রায় সবারই স্বপ্ন থাকে এমন কোনো সুযোগ পাওয়ার। সেখানে আমি যেতে পেরেছি এটা আমার অনেক বড় পাওয়া। নিজের অনুভূতি আসলে বলে বুঝানোর মতো না। সব মিলিয়ে অনেক ভালো লাগছে। আর সবচেয়ে বড় ব্যাপার হচ্ছে আমার পরিবারকে এই সুসংবাদ দিতে পেরেছি৷

সবার আগে মায়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সাফায়েত বলেন, মায়ের প্রতি সবসময় কৃতজ্ঞ। মাকে এই সংবাদ দিতে পেরে সবচেয়ে বেশি খুশি হয়েছি। মা, বড় মামার সাপোর্ট না থাকলে পড়াশোনাই করতে পারতাম কি-না সন্দেহ। তাদের প্রতি ও আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা। আর বন্ধুদের কাছ থেকে অনেক মানসিক সাপোর্ট পেয়েছি সবসময়।

নিজেকে কিভাবে যোগ্য করে গড়ার চেষ্টা করেছেন সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিজেকে সামনের দিনে কেমন দেখতে চাই সেই সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে আমি অনেক স্বাধীনতা পেয়েছি। পরিবার সবসময় সাপোর্ট করতো। ছোটোবেলা থেকেই নিজের মতো করে পড়াশোনা করতাম। বাবা-মা কোনোদিন চাপ প্রয়োগ করেনি। সবসময় নিজে কোন জিনিসটা করতে পারবো সেটাতেই মনোযোগ দিতাম। আমার সবচেয়ে বেশি আত্মবিশ্বাস তৈরি করেছে- ম্যাথ আর প্রবলেম সলভিং। অষ্টম শ্রেণি থেকেই আমি গণিত অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণ করতাম। আর বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের প্রথমদিক থেকেই নানা কম্পিউটার প্রবলেম সলভিং প্রতিযোগিতায় অংশ নিতাম৷ এসব প্রতিযোগিতায় গিয়ে অনেক অভিজ্ঞতা হয়েছে। নতুন অনেক কিছু শিখতে ও বুঝতে পেরেছি।

সাফল্য: সাফায়েত ২০১৩ এবং ২০১৪ সালে গণিত অলিম্পিয়াডে ফেনী-নোয়াখালী-লক্ষীপুর অঞ্চলের চ্যাম্পিয়ন অফ দ্যা চ্যাম্পিয়ন হয়ে জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহণ করেন। ২০১৪ সালে জাতীয় পর্যায়ে এসে সেকেন্ড রানার আপ হোন তিনি। পরে বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় ২০১৮ সালে গ্রিন ইউভার্সিটিতে প্রোগ্রামিং কন্টেস্টে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। একই বছরে ICPC Dhaka Regional এ ৪র্থ স্থান অর্জন করেন তিনি৷ পরে ভারতের IIT খরগপুরে অনুষ্ঠিত ICPC খড়গপুর রেজিওনালে ১০ম হয়েছিলেন এই ঢাবি শিক্ষার্থী।

সাফায়েতের গুগলে সুযোগ পাওয়ার বিষয়ে কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. সাইফুদ্দিন মো. তারেক ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীরা নিয়মিতই বড় বড় প্রতিষ্ঠানে কাজ করে দেশের ও আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম উজ্জ্বল করছে। আমরা প্রতিবছরই এমন সুসংবাদ পাই। সামনের দিনে আমাদের শিক্ষার্থীরা আরো ভালো করবে এই কামনা করি।

About desk

Check Also

হেনস্তার শিকার চবির দুই ছাত্রী, বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবাদ

রাতে বাসায় ফিরতে গিয়ে হেনস্তার শিকার হয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) দুই শিক্ষার্থী। ভুক্তভোগী দুই ছাত্রী …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *