Breaking News

নিয়মই বলছে, আর্জেন্টিনার কাছে তিন পয়েন্ট হারাবে ব্রাজিল

করোনা মহামারির মধ্যে কোয়ারেন্টাইন ইস্যুতে স্থগিত হয়েছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ। খেলা শুরুর মাত্র ৬ মিনিটের মাথায় বন্ধ হয়ে যায় ম্যাচটি। এরপরই বিশ্বকাপ বাছাইয়ের এই ম্যাচটি স্থগিত ঘোষণা করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছে দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবল ফেডারেশন ‘কনমেবল’।

কিন্তু এখনও বাতিল ঘোষণা করা হয়নি ম্যাচ। তবে যদি ম্যাচটি বাতিল হয়ে যায়, সেক্ষেত্রে কনমেবলের নিয়ম ব্রাজিলের পক্ষে না আসারই কথা। দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থা কনমেবলের শৃঙ্খলাবিধির ৭৪ নম্বর ধারায় স্পষ্টভাবেই উল্লেখ করা আছে, ম্যাচ শুরু হয়ে গেলে খেলা থামিয়ে খেলোয়াড়দের ম্যাচ খেলায় নিষেধাজ্ঞা দেয়া যাবে না। খেলতে বাধা দেওয়া যাবে না।

খেলোয়াড় সংক্রান্ত কোনো সমস্যা থাকলে সেটা মেটাতে হবে ম্যাচ শুরুর আগে বা পরে, ম্যাচ চলাকালীন সময়ে অবশ্যই নয়। এমনটি হলে যে দলের কারণে ম্যাচ থেমে যাবে, সে দল তিন পয়েন্ট হারাবে। প্রতিপক্ষ দল পাবে সেই তিন পয়েন্ট। সেই হিসেবে ম্যাচের মাঝপথে ব্রাজিলিয়ান স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ হস্তক্ষেপ করায় প্রতিপক্ষ হিসেবে আর্জেন্টিনারই পূর্ণ তিন পয়েন্ট পাওয়ার কথা। আর্জেন্টাইন গণমাধ্যম ‌’মুন্দো আলবিসেলেস্তে’ও জানিয়েছে এমন তথ্য। যদিও এখনও কনমেবলের পক্ষ থেকে পয়েন্টের ব্যাপারটি নিয়ে স্পষ্ট কোনো ঘোষণা আসেনি। কনমেবল জানিয়েছে, ম্যাচ রেফারি ও কমিশনার এই ম্যাচের রিপোর্ট জমা দেবেন ফিফার শৃঙ্খলা রক্ষাকারী কমিটির কাছে। তারপর ফিফাই সিদ্ধান্ত নেবে।

মূলত কোয়ারেন্টাইন বিধি নিয়েই সমস্যার উৎপত্তি। ব্রাজিলিয়ান হেলথ রেগুলেটরি এজেন্সির নির্দেশনা অনুযায়ী যুক্তরাজ্য, উত্তর আয়ারল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ভারত থেকে ব্রাজিলে প্রবেশ নিষিদ্ধ। যাদের স্বাস্থ্য ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে, তাদেরও ১৪ দিন বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন করতে হবে।

কিন্তু এই নিয়ম না মেনেই ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে খেলা চার খেলোয়াড়কে মাঠে নামিয়ে দিয়েছে আর্জেন্টিনা। তারা হলেন-এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া, এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, জিওভানি লো চেলসো ও ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো। ম্যাচ শুরু হতেই মাঠে হানা দেয় ব্রাজিলের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ। মাত্র তিনদিন আগেই ইংল্যান্ড থেকে ব্রাজিলে পা রাখা চার আর্জেন্টাইন খেলোয়াড় কী করে মূল একাদশে জায়গা করে নিলেন, এ নিয়ে শুরু হয় আর্জেন্টিনার ফুটবলার কর্তাদের সঙ্গে বাদানুবাদ।

এই অবস্থায় রেফারি দ্রুত আর্জেন্টিনা দলকে ড্রেসিংরুমে পাঠিয়ে দেন। মাঠে তবু আলোচনা চলতে থাকে। ব্রাজিলের খেলোয়াড়রা তখনও মাঠ ত্যাগ করেননি। সম্ভবত তারা ম্যাচটি খেলতে চাইছিলেন। কিন্তু স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ সে অনুমোদন দেয়নি। পরে এক পর্যায়ে লিওনেল মেসিকে নিয়ে মাঠে ঢুকতে দেখা যায় ব্রাজিলের দানি আলভেজকে। মেসি মাঠে ঢুকে নেইমারের সঙ্গে অনেকক্ষণ কথা বলেন। কিন্তু ম্যাচ আর শুরু হওয়ার লক্ষণ দেখা যায়নি। শেষ পর্যন্ত স্থগিতই করা হয়েছে বহুল প্রতীক্ষিত লড়াইটি।

About desk

Check Also

হঠাৎ সব ধরনের ক্রিকেট থেকে মালিঙ্গার বিদায়

এমনিতেই একের পর এক তারকার বিদায়ে করুণ অবস্থা শ্রীলঙ্কার। সাঙ্গাকারা, মাহেলা, দিলশান, কুলাসেকারার মতো তারকার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *