Breaking News

পরীমণিকে ভাল লাগে, ভীষণ সাহসী: নচিকেতা

সম্প্রতি মাদক মামলায় জামিন নিয়ে মুক্তি পেয়েছেন চিত্রনায়িকা পরীমণি। বেশ কিছুদিন ধরেই আলোচনার কেন্দ্রে তিনি। সেটি কিছুটা স্তিমিত হতে না হতে আবারও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের নিরাপত্তাহীনতার কথা জানালেন পরী। সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে তিনি এই নিরাপত্তাহীনতার কথা জানান।

পরীমণি লিখেছেন, ‘দেশমাতা,আমাকে কি একটু নিরাপত্তা দিতে পারেন! রাস্তায় মানুষগুলোও এতো অনিরাপদ না। একবার একটু দেখেন না আমার দিকে, কি করে বেঁচে আছি।’

এসব কথা পৌঁছে গেছে ওপার বাংলায়ও। দুই বাংলার জনপ্রিয় শিল্পী নচিকেতা চক্রবর্তীর গান শুনে সাহস ফিরে পেতে চাইছেন বাংলাদেশের এই অভিনেত্রী? সোমবার পরীমণি ফেসবুকে নচিকেতার ২০১৭ সালের গান ‘এত সাহস কার’ শেয়ার করেছেন।

আনন্দবাজার অনলাইনের কাছ থেকে বিষয়টি শোনার পরেই নচিকেতার বলেন, ‘আমার ব্যক্তিগতভাবে পরীমণিকে ভাল লাগে। ভীষণ সাহসী। যেটা বলা উচিত সেটা সবার সামনে বলার ক্ষমতা রাখেন। তার দেশের পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন অভিনেত্রী। যা খুব সহজ নয়। যা করছেন বেশ করছেন তিনি।’

মাদক মামলায় ২৭ দিনের কারাগারে থাকার পর মানসিক দিক দিয়ে বিধ্বস্ত পরীমণির লড়াইয়ের নেপথ্য শক্তি, নানা শামসুল হক গাজির লেখা একটি চিঠি এবং নচিকেতার গান। যে গানে শিল্পী বলেছেন, ‘তোমার মন খারাপের কারণটা কে, এত সাহস কার?…. তাকে আকাশ থেকে এই মাটিতে নামানো দরকার।’

ইতিমধ্যেই পরীমণির এই পোস্ট দেখেছেন হাজারও মানুষ। এবিষয়ে নচিকেতার বলেন, ‘আমি জানি পরীমণি আমার গান শোনেন। পছন্দও করেন। আমি ওর অনুপ্রেরণা জেনে ভাল লাগছে।’

পাশাপাশি তিনি এও বলেন, সবার বোঝা উচিত, অভিনেত্রীরও ‘না’ বলার অধিকার আছে। সেই ‘না’ উচ্চারণ করেই তিনি আজ এত বিপাকে। এটা ওর দোষ নয়। সমাজের দোষ।

উল্লেখ্য, ১৩ই জুন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্ষণ ও হত্যা চেষ্টার শিকার হয়েছেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর সাহায্য কামনা করে একটি পোস্ট দেন পরীমণি। তারপর থেকেই মূলত আলোচনায় উঠে এসেছেন তিনি। নানা ঘটনাপ্রবাহে যেতে হয়েছে কারাগারে। এখন জামিনে মুক্ত আছেন এই নায়িকা।

About desk

Check Also

আমার জীবন নিয়ে যারা খেলতে চায়, আমি তাদের সঙ্গে খেলতে প্রস্তুতঃ পরীমনি

বর্তমান সময়ের সেরা আলোচিত জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমনি। আলোচনা- সমালোচনা নিয়েই তার ক্যারিয়ার। বরাবরই তিনি আলোচনায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *