Breaking News

মায়ের মরদেহ লুকিয়ে পেনশনের টাকা তুলছিলেন ছেলে

ওই ছেলের মায়ের মৃত্যু হয়েছে সেই ১৫ মাস আগে। কিন্তু পেনশনের অর্থ পেতে নিজের মায়ের মৃত্যুর খবর গোপন রেখেছিলেন ছেলেটি।

এতেই ক্ষান্ত হননি মায়ের মরদেহও লুকিয়ে রাখেন। আয়-রোজগার না থাকায় মায়ের পেনশনের টাকা দিয়েই দিব্যি চলছিলেন তিনি। কিন্তু চোরের দশদিন গৃহস্থের একদিন। সেটাই ঘটল। ধরা পড়ল ছেলে।

ঘটনাটি অস্ট্রিয়ার। গত বছরের জুনে ৮৯ বছর বয়সী ওই বৃদ্ধার মৃত্যু হয়। তারপর এক বছরের বেশি সময় মায়ের মৃত্যুর তথ্য ও লাশ গোপন করে রাখেন ছেলে। এ সময় তিনি মায়ের পেনশনের অর্থ নিতে থাকেন। একপর্যায়ে তার প্রতারণা ধরা পড়ে।

খবরে বলা হয়, এলাকায় নতুন ডাকপিয়ন আসার পরই ধরা পড়েন ছেলে। পেনশনের অর্থ দিতে নতুন ডাকপিয়ন বৃদ্ধার বাড়িতে যান। তিনি ওই বৃদ্ধার সঙ্গে দেখা করতে চান। কিন্তু বৃদ্ধার সঙ্গে ডাকপিয়নকে দেখা করিয়ে দিতে অস্বীকৃতি জানান ছেলে। ডাকপিয়ন বৃদ্ধার দেখা না পাওয়ায় বিষয়টি তদন্ত পর্যায়ে গড়ায়। তারপরই ছেলের প্রতারণার বিষয়টি সামনে আসে।

ওই বৃদ্ধার স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছিল বলে ধারণা করছে দেশটির পুলিশ। পুলিশের বরাত দিয়ে শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) বিবিসি অনলাইনের খবরে বলা হয়, মায়ের মৃত্যুর পর থেকে ধরা পড়ার আগপর্যন্ত পেনশনের প্রায় ৫০ হাজার ইউরো অবৈধভাবে ৬৬ বছর বয়সী ছেলে তুলে নিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অস্ট্রিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম ওআরএফকে পুলিশ জানিয়েছে, মায়ের মৃত্যুর পর ছেলে এ খবর গোপন রাখেন। মরদেহের পচন ও দুর্গন্ধ ছড়ানো বন্ধে তিনি নানা কৌশল ব্যবহার করেন। ফলে মরদেহ অনেকটা মমির মতো হয়ে গিয়েছিল। পরে তিনি তার মায়ের মরদেহ বাড়ির বেসমেন্টে লুকিয়ে রাখেন।

ধরা পড়ার পর ওই ব্যক্তি সবকিছু স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তা। মায়ের মৃত্যুর খবর পরিবারের সদস্যদের কাছেও লুকিয়েছেন তিনি। তার ভাইকে জানান, মা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

About desk

Check Also

বিয়েবাড়িতে ছবি তোলাকে কেন্দ্র করে গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, আহত ২২

বিয়েবাড়িতে ছবি তোলাকে কেন্দ্র করে কুমিল্লার হোমনা উপজেলার ঘারমোড়া বাজারে দু’দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *