Breaking News

যেনে নিনঃ মশলাদার খাবার খেয়ে দুধ খেলে কী হয়

দাওয়াতের খাওয়া দাওয়া বলে কথা। মাংসতে তো ভালই তেল-মশলা পড়েছিল। তাতে যদি শুকনো মরিচ থেকে থাকে, তবে তো কথাই নেই। ঝাল লাগতেই পারে। তখন কী করেন? বোতলবন্দি নরম পানীয় খান। কিংবা বরফ দিয়ে জল খেতেই থাকেন। শেষ পর্যন্ত ঝালতো কমেই না, বরং খাবারের পরপরই অতিরিক্ত পানি খাওয়ার ফলে আপনার পরিপাক তন্ত্রের কার্যক্রম বাঁধাপ্রাপ্ত হয়,তাই এরপর থেকে এমন হলে দুধ খেলেই পাবেন সমাধান।

অবাক হচ্ছেন তো?
কিন্তু দুধে এমন একটি জিনিস থাকে, যা সহজেই মরিচের ঝাঁঝের সঙ্গে লড়তে পারে। শুকনো মরিচের ঝাল মূলত হয় ক্যাপসাইসিন নামক একটি বস্তু থেকে। আর দুধে থাকে ক্যাসিন নামক একটি প্রোটিন। এই দুটি উপাদান একে অপরের সঙ্গে মিলতে সময় নেয় না। তাই সঙ্গে সঙ্গে ঝাল খাওয়ার অস্বস্তি কমে যায়। জিভে বা পেটে যে জ্বালা ভাব তৈরি হয়েছিল, তা মুহূর্তের মধ্যেই গায়েব হয়ে যায়।

তাই বলে প্রক্রিয়াজাত করা দুধ খেলে কোনও কাজ হবে না। সয়া মিল্ক বা আমন্ড মিল্কে মোটেই ক্যাসিন থাকে না। গরুর দুধ খেলে অবশ্যই কাজ হবে। কারণ এতে আছে প্রচুর পুষ্টিগুণ পানি, আমিষ, ক্যালসিয়াম পটাশিয়াম, ফসফরাস, ভিটামিন এ,ভিটামিন ডি,ভিটামিন বি-১২,নিয়ামিন,রিবোফ্লাঝি অত্যাবশ্যকীয় ফ্যাটি এসিড এবং অ্যামাইনো এসিড ইত্যাদি। দুধ শরীরকে ভালো ও সুস্থ রাখার পাশাপাশি, শরীরে শক্তি জোগান এবং ক্লান্তি দূর করে। মানসিক চাপ দূর করতে সাহায্য করে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়। এবং বিশেষভাবে গরুর দুধে রয়েছে ক্যাসিন নামক প্রোটিন যা মরিচের ক্যাপসাইসিনের সাথে লড়াই করে জয় লাভ করে।

About desk

Check Also

দেশে ৬ কারনে আঘাত হানতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ

করোনাভাইরাস হ্রাস পাওয়ার কারণে বর্তমানে দেশে সব কিছু খুলে দিয়েছে সরকার। খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও। শিগগিরই খোলা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *